অনলাইন পত্রিকার নীতিমালা দ্রুত করে ফেলব..প্রধানমন্ত্রী

0
250

মিডিয়া ডেস্ক।।

অনলাইন পত্রিকার জন্যে নীতিমালা খুব দরকার। আশা করি, খুব তাড়াতাড়ি অনলাইন পত্রিকার নীতিমালা করে ফেলব বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে বুধবার (২৪ আগস্ট) সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট থেকে ১৯৬ জন দুস্থ, অসহায় এবং নিহত সাংবাদিকের পরিবারের মাঝে এক কোটি ৪০ লাখ টাকা সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

অনলাইন গণমাধ্যম প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অনলাইন পত্রিকা ব্যাপকভাবে বের হচ্ছে। তবে এর কোনো নীতিমালা নেই। অনলাইন গণমাধ্যমগুলোর নীতিমালা করতে হবে। সবাইকে একটা নীতিমালায় আসতে হবে। ইতিমধ্যে আমরা এ বিষয়ে কাজ শুরু করেছি। সেখানে কী থাকবে, আর কী থাকবে না সেটাও নীতিমালায় আসবে আশা করি। খুব দ্রুত এই নীতিমালা আসবে। এটা খুব দরকার।

শেখ হাসিনা বলেন, কেউ যাতে অশ্লীলতা ছড়াতে না পারে সে বিষয়টিও খেয়াল রাখতে হবে।

এ সময় সমন্বিত নবম ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়নের জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নিতে তথ্যমন্ত্রীকে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

একই সঙ্গে যেসব গণমাধ্যম সাংবাদিকদের অষ্টম ওয়েজ বোর্ড দেয় না কিন্তু সরকারি সুযোগ-সুবিধা নেয় তাদের বিষয়গুলো খতিয়ে দেখতে তথ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ জানান তিনি।

সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, যত খুশি সমালোচনা করুন আপত্তি নেই। তবে সেটা গঠনমূলক ও শিক্ষণীয় হতে হবে। সমালোচনার জন্য সমালোচনা করা উচিত নয়।

বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের সরাসরি সম্প্রচারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, সরাসরি সম্প্রচার মানুষের জীবনকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। দয়া করে এটা করবেন না। যখন একটা ঘটনা ঘটে, তখন আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পদক্ষেপ নিতে যায়। এটা যদি আপনার দেখান কোথায় কে ঝোঁপের মধ্যে লুকিয়ে থাকল, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কী পদক্ষেপ নিচ্ছে তাহলে এটা তো সন্ত্রাসীরাও দেখে ফেলল। তারাও তো এটা দেখে অ্যালার্ট হয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, আপনারা লাশের বীভৎস ছবি দেখান। এগুলো বিদেশি কোনো মিডিয়াতে কি দেখায়? বিদেশেও তো অনেক ঘটনা ঘটে। এমন ছবি শিশুদের মনে বিরূপ প্রভাব ফেলে। তাহলে আপনারা কেন দেখান? আন্তর্জাতিক নীতিমালা আপনাদেরও মেনে চলতে হবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত সাংবাদিকরা তাদের আবাসনের জন্য জমির ব্যবস্থা করতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানান।

এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা জায়গা দেখে থাকলে আমি খোঁজখবর নিয়ে দেখব। যদি জমি নিয়ে দেওয়া যায় তাহলে ব্যবস্থা করে দেব।

জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।