আ’লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী যারা

0
57

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বরিশাল সিটি কর্পোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে ৩৮জন (সংরক্ষিতসহ) কাউন্সিলর প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে মহানগর আওয়ামী লীগ।

তবে ৩০টি ওয়ার্ডের মধ্যে ২০ ও ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কোনো প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেননি।

বরং এই দুই ওয়ার্ডে সবার জন্য উন্মক্ত রাখা হয়েছে। বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট একেএম জাহাঙ্গীর স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিসিসি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত হিসেবে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে-১ নম্বর ওয়ার্ডে আমির হোসেন বিশ্বাস, ২ নম্বরে মো. আহসান উল্লাহ, ৩ নম্বরে মো. মজিবর রহমান মৃধা, ৪ নম্বরে তৌহিদুল ইসলাম, ৫ নম্বরে শেখ মো. আনোয়ার হোসেন ছালেক,

৬ নম্বরে আকতার উজ্জামান, ৭ নম্বরে রফিকুল ইসলাম, ৮ নম্বরে সুরঞ্জিত দত্ত লিটু, ৯ নম্বরে এএসএম মোস্তাফিজুর রহমান এবং ১০ নম্বরে মো. জয়নাল আবেদিন হাওলাদার।

১১ নম্বরে মজিবর রহমান, ১২ নম্বরে মো.জাকির হোসেন, ১৩ নম্বরে মেহেদী পারভেজ খান, ১৪ নম্বরে তৌহিদুর রহমান, ১৫ নম্বরে লিয়াকত হোসেন খান, ১৬ নম্বরে মো. মোশাররফ আলী বাদশা, ১৭ নম্বরে মো. আকতার উজ্জামান গাজী (হিরু),

১৮ নম্বরে মো, কামরুজ্জামান, ১৯ নম্বরে গাজী নঈমুল হোসেন লিটু, ২১ নম্বরে শেখ সাঈদ আহমেদ, ২২ নম্বরে আনিছুর রহমান,২৪ নম্বরে শরীফ মো. আনিছুর রহমান (আনিছ শরীফ),

২৫ নম্বরে এম সাইদুর রহমান জাকির, ২৬ নম্বরে মো. হুমায়ুন কবির, ২৭ নম্বরে আবদুর রশিদ হাওলাদার, ২৮ নম্বরে মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, ২৯ নম্বরে মো. ফরিদ আহমেদ এবং ৩০ নম্বরে আজাদ হোসেন মোল্লা কালামকে সমর্থন দেয়া হয়েছে। সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে ১ নম্বর ওয়ার্ডে (১-৩) মিনু রহমান, ২ নম্বর ওয়ার্ডে (৪-৬) আলমতাজ বেগম,

৩ নম্বর ওয়ার্ডে (৭-৯) কোহিনুর বেগম, ৪ নম্বর ওয়ার্ডে (১০-১২) মাকসুদা আক্তার মিতু, ৫ নম্বর ওয়ার্ডে (১৩-১৫) মোছা. কামরুন নাহার রোজী, ৬ নম্বর ওয়ার্ডে (১৬-১৮) গায়েত্রী সরকার, ৭ নম্বর ওয়ার্ডে (১৯-২১) সালমা আক্তার শিলা, ৮ নম্বর ওয়ার্ডে (২২, ২৩, ২৭) রেশমী বেগম, ৯ নম্বর ওয়ার্ডে (২৪-২৬) ডালিম বেগম এবং ১০ নম্বর ওয়ার্ডে (২৮-৩০) মোছা. রোজী বেগম।

এই প্রথমবারের মতো দলীয় সমর্থনে বিসিসি নির্বাচনে মেয়রের পাশাপাশি কাউন্সিলরা নির্বাচন করতে যাচ্ছেন। তার জন্য সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৬৬জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ২০জন মনোনায়নপত্র দাখিল করেন।

এতে ৩৮ জনকে মনোনয়নপত্র দেওয়া হয়। নির্বাচনে ৩০ ওয়ার্ডের ২৮টিতে আওয়ামী লীগের সমর্থন দেওয়া ১৪ প্রার্থী একেবারেই নতুন। যাঁরা এর আগে কোনো নির্বাচনে অংশ নেননি। বাকি ১৪ জনের মধ্যে ছয়জন বর্তমান কাউন্সিলর এবং আটজন এর আগে নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয়-পরাজয়ের স্বাদ নিয়েছিলেন।

অন্যদিকে সংরক্ষিত ১০টি কাউন্সিলর পদে দুজন নতুন প্রার্থীকে সমর্থন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। বাকি আটজনের মধ্যে পাঁচজন বর্তমান কাউন্সিলর এবং অন্য তিনজন একাধিকবার নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন।

এবারের নির্বাচনে তাই দলের অনেক প্রার্থীকেই বিরোধী হেভিওয়েট প্রার্থীর সাথে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ন হতে হবে। যে ১৪টি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ নতুন প্রার্থীদের সমর্থন দিয়েছে ওই ওয়ার্ডগুলোতে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী কখনোই বিজয়ী হতে পারেননি।

এ ওয়ার্ডগুলো বিএনপি প্রার্থীদের দখলে রয়েছে। মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল বলেন, ‘৩০টি ওয়ার্ডে সম্ভাব্য ৮৮ জন কাউন্সিলর প্রার্থীর কাছ থেকে আবেদন পেয়েছি। তাঁদের থেকে ৩৮ জনকে দলীয় সমর্থন দেওয়া হচ্ছে।

বয়সে তরুণ যোগ্য প্রার্থীদের সমর্থন দেওয়ার ব্যাপারে আমরা সুপারিশ করেছি। দলীয় সমর্থনের বাইরে গিয়ে যাঁরাই নির্বাচন করবেন, তাঁদের ব্যাপারে দলীয় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তিনি বলেন, এই তালিকাটি চূড়ান্ত নয়। পরবর্তীতে পরিবর্তন আসার সম্ভবনা রয়েছে।