আ.লীগকে টানা ছয়বার ক্ষমতায় বসাবে জনগণ: এলজিআরডি মন্ত্রী

0
19

সময়ের বার্তা ।।

শেখ হাসিনার সরকার বারবার এলে দেশের উন্নয়ন হবে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী (এলজিআরডি মন্ত্রী) ইঞ্জিনিয়ার খন্দকর মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেছেন, শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের সরকারকে টানা ছয়বার ক্ষমতায় বসাবে জনগণ।

যুবলীগের ৪৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে ফরিদপুর শহরের জনতা ব্যাংকের মোড়ে এক যুব সমাবেশে এ কথা বলেন মন্ত্রী। জেলা যুবলীগ আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন মন্ত্রী।

বর্তমান সরকারের আমলে দেশের উন্নয়নের কথা উল্লেখ করে এলজিআরডি মন্ত্রী এই ধারাবাহিকতা ভবিষ্যতে বজায় রাখার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন। তিনি বলেন, ‘এখন আমাদের সামনে চ্যালেঞ্জ হলো ২০১৮ সালের শেষের দিকে আমরা আবার জাতীয় নির্বাচনের সম্মুখীন হব। এ সময়ে জনগণের সমর্থন আমাদের ধরে রাখতে হবে।’

অবশ্য জনগণের সমর্থনের বিষয়ে তার আস্থার কথাও ব্যক্ত করেন খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ‘আগে আমাদের ধারণা হয়েছিল পর পর তিনবার এক নেতা ও এক দলকে এ দেশের জনগণ মেনে নেবে না। কিন্তু আজকের এ বিশাল সমাবেশ দেখে আমার এ প্রত্যয় হয়েছে তিনবার কেন শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগকে পর পর ছয়বার এ দেশের জনগণ ক্ষমতায় বসাবে।’
‘আজ থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করে দিলাম’- ঘোষণা দিয়ে খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘শেখ হাসিনার দলকে না জেতানো পর্যন্ত আমরা মাঠ ছাড়ব না। নির্বাচনের মাত্র এক বছর বাকি আছে। এ সময় মিছিল করতে করতে পার হয়ে যাবে।’

খন্দকার মোশাররফ তার বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশকে পর্যায়ক্রমে উন্নত দেশে তুলে নেয়ার রূপকল্পের কথা স্মরণ করেন। তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা যখন ২০২১ ও ২০৪১ সালে যথাক্রমে মধ্যম আয়ের দেশ ও উন্নত দেশে পরিণত করার রূপকল্প ঘোষণা করেছিলেন, তখন বিরোধী দলের নেতা-নেত্রীরা হাসিঠাট্টা করেছিল। কিন্তু বাস্তবতা হলো আট বছর আগে যেখনে মাথাপিছু জাতীয় আয় ছিল ৫০০ ডলার, এখন তা তিন গুণের বেশি বেড়ে ১৬১০ ডলার হয়েছে। এ থেকে প্রমাণিত হয় কতটা দূরদৃষ্টি জ্ঞান ধারণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

এলজিআরডি মন্ত্রী বিগত দিনে ফরিদপুরের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ভবিষ্যতে ধরে রাখার ঘোষণা দিয়ে বলেন, ‘২০০৮ সালে আমাকে ফরিদপুর সদর আসন থেকে নির্বাচিত করে ফরিদপুরবাসী উন্নয়নের রূপরেখা দেখতে পেয়েছে। ফরিদপুরে একটি বিশ্ববিদ্যালয় করার জন্য ৩০ একর জমি দেখা হয়েছে। আগামী নির্বাচনে আমি নির্বাচিত হলে সেটি বাস্তবায়িত হবে।’
একনেকের গত সভায় প্রধানমন্ত্রী ফরিদপুরকে ডিভিশনাল হেডকোয়ার্টার করার ঘোষণা দিয়েছেন বলে জানান এলজিআরডি মন্ত্রী। আটটি ডিভিশনাল হেড কোয়ার্টারের মধ্যে ফরিদপুর হবে সবার সেরা। পাশাপাশি ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশন হচ্ছে। এর জন্য ফরিদপুর পৌরসভার সীমানা বাড়িয়ে আগের চেয়ে চার গুণ বাড়ানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহা, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান খন্দকার মোহতেসাম হোসেন ওরফে বাবর।

জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক এ এইচ এম ফোয়াদের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন জেলা যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক ফরিদা ইসলাম, সদর যুবলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, শহর যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি চৌধুরী মো. হাসান, সদর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ মো এমার হক, শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আসিবুর রহমান ওরফে ফারহান।