এমপি পংকজ ও ওসির বিরুদ্ধে আ’লীগ নেতা সঞ্জয়ের পুলিশ হেড কোয়ার্টাসে অভিযোগ, দেখুন ভিডিওসহ

0
329

স্টাফ রিপোর্টার ॥ জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে বাংলাদেশ পুলিশ হেড কোয়ার্টাস এর আইজি সিকিউরিটি সেল বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার কাজীর হাট থানা শাখার আওয়ামীলীগের সহ প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক শ্রী সঞ্জয় চন্দ্র।

কাজীর হাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিসুল হক, এমপি পংকজ নাথ ও মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের স্বামী রহিম শরীফ এর মোবাইলের কল রেকর্ড উদ্ধারের জন্য আবেদন করেন আ’লীগ নেতা সঞ্জয়। সঞ্জয় লিখিত অভিযোগে বলেন, তিনি কাজীরহাট থানা আওয়ামীলীগের সহ-প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক এবং সাবেক ইউপি সদস্য। দীর্ঘদিন যাবত স্থানীয় এমপি পংকজ নাথ দুর্নীতি ও অনৈতিক কর্মকাণ্ডের আইনগত ও বিভিন্ন সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রতিবাদ করে আসছেন।

উক্ত যের ধরে ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসের ২০ তারিখ এমপি পঙ্কজ নাথ সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে দুটি পা, একটি হাত হাতুরি দিয়ে পিটিয়ে পঙ্গু করে উল্টো তার বিরুদ্ধে ছিনতাই মামলা দিয়ে এমপি পঙ্কজ নাথ এর পুষ্য পুত্র খ্যাত কাজীরহাট থানার সাবেক ওসি মাসুম তালুকদার ও এসআই আলী আজিম কর্তৃক জেল হাজতে প্রেরণ করেন এছাড়া এমপি তার বিভিন্ন লোক

দিয়ে কোর্টে মামলা করিয়ে কাজীরহাট থানায় তদন্ত নিয়ে এমপি পুষ্য পুত্র সাবেক ওসি মাসুম তালুকদার ও এসআই আলী আজিম দ্বারা একাধিক মামলার মিথ্যা প্রতিবেদন দিয়ে হয়রানি করেন। যাহার মামলা নং ৮/১৭ কাজীরহাট থানা, সিআর- ৩৩/১৭, ৩৪/১৭, ৩৭/১৭, ৩৯/১৭।

পুনরায় এমপি পঙ্কজ নাথ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের স্বামী: রহিম শরীফ ও বর্তমান কাজীরহাট থানার ওসি আনিসুল হক তার বিরুদ্ধে নতুন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন।

বর্তমানে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে উল্লেখ করেন। সঞ্জয় লিখিত অভিযোগে আরো উল্লেখ করেন, এমপি পংকজের সন্ত্রাসী বাহিনীর কারনে দীর্ঘদিন যাবত নিজ জন্মভূমি ও নির্বাচনী এলাকায় যেতে পারছেন না। সঞ্জয় জানান, নতুন এই ষড়যন্ত্রের বহি:প্রকাশ ঘটিয়াছে কাজীরহাট থানার ওসি আনিসুল হক এর নিজ কক্ষে ০৫/১১/২০১৯ ইং তারিখে, রোজ মঙ্গলবার রাতে।

সেখানে উপস্থিত ছিলেন মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান, মাহফুজুর আলম লিটন, রহিম শরীফ ও আরো কয়েকজন। রহিম শরীফ ওসি আনিসুল হককে বারবার আমার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে চাপ প্রয়োগ করলে ওসি আনিসুল হক বলেন, এমপি মহোদয় বারবার টেলিফোন করে বলেছেন ব্যবস্থা নিতে।

সে যদি এলাকায় না আসে তাহলে কি হেলিকপ্টার দিয়ে লড়াইয়া ধরব। ঘটনাস্থলে উপস্থিত লোকজনদের মাধ্যমে জানতে পেরে জীবনের নিরাপ্তা ও যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়ে চলতি মাসের ১৪ তারিখ ডাক যোগে আইজি বাংলাদেশ পুলিশ হেড কোয়ার্টাস এর বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ডি.আই.জি রেঞ্জ বরিশাল এর নিকট অনুলিপি প্রদান করেন।