কালকিনিতে মামা-খালুর হাতে ভাগনে আহত !

0
335
SONY DSC

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মাদারিপুর কালকিনি উপজেলায় সৌদি প্রবাসী যুবক পাওনা টাকা চাওয়ার কারনে প্রতিপক্ষের হাতে হামলার শিকার হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে । আহত যুবককে আশঙ্কা জনক অবস্থায় শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দক্ষিন রমজানপু গ্রামের মৃত ফজলুল হক কাজীর পুত্র কাজী মো: মনির হোসেন (৩৭) দীর্ঘ ১৬ বছর যাবত সৌদি আরব থাকেন। সে সময় তার আপন মামা সাইদুল হক মোল্লা ও খালু হারুন ঘরামি জমি ক্রয় করে দেওয়ার জন্য ও বিভিন্ন প্রকার ব্যবসায় পার্টনার করার কথা বলে নগদ ২০ লক্ষ টাকা নেয়। কিন্তু কয়েক বছর পেরিয়ে গেলেও কোন জমি ক্রয় করে দেয়নি কিংবা কোন ব্যবসার পার্টনার বানায়নি। এক পর্যায়ে মনির গত ৬ মাস পূর্বে দেশে ফিরে আসে এবং জমির ক্রয় করার নামে ও ব্যবসার নামে নেওয়া ২০ লক্ষ টাকা তাদের কাছে ফেরত চায় । কিন্তু তার মামা , খালু বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে নানা প্রকার টালবাহানা করে ।

এ নিয়ে গত ১৬ ডিসেম্বর (রবিবার) বেলা ১১ টায় মনির পাওনা টাকা বিষয়ে কথা বলার জন্য চরপালদি সুইজগেট সংলগ্ন সাইদুল হক মোল্লার বাড়িতে যায় । মনির পাওনা টাকার বিষয়ে কথা বলা মাত্রই সহিদুল হক মোল্লা, তার স্ত্রী পারভীন বেগম ও তাদের মেয়ে নিপা বেগম এবং হারুন ঘরামি, তার স্ত্রী জাবেদা বেগম ও তাদের মেয়ে সুখি আক্তার তেলে বেগুনে জ্বলে উঠে। এ সময় মনিরের সাথে কথার কাটাকাটি হয় । এক পর্যায়ে মনিরকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে তার মামা সাইদুল হক গলা চেপে ধরে এবং সেই সাথে খালু হারুন ঘরামি শাবল দিয়ে কোপ দেয়। এ সময় মনির নিজেকে রক্ষা করার জন্য দৌড়ে পালাতে চেস্টা করলে তাকে ধাওয়া করে সইদুল হক, পারভীন বেগম , নিপা বেগম, হারুন ঘরামি, জাবেদা বেগম ও সুখি আক্তার রড ও হাতুর দিয়ে পটিয়ে গুরুতর আহত করে। এতে মনিরের মাথা সহ শরিরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়। এসময় মনিরের সাথে থাকা নগদ টাকা, মোবাইল ফোন ও সন্যের চেইন নিয়ে যায়। পরে আহত মনিরকে স্থানীয়রা ঘটনা স্থল থেকে উদ্ধার করে কালকিনি স্বাস্থ্য কম্পেক্সে ভর্তি করে। কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থার অবনতি দেখে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতাল কলেজ প্রেরন করে। বর্তমানে মনির হাসপাতালের বেডে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।