চার বছরের বায়জিদ দেখতে ৮০ বছরের বৃদ্ধের মতো

0
190

নিউজ ডেস্ক।।

শিশুটির বয়স চার বছর। অথচ দেখতে যেনো আশি বছরে বৃদ্ধ। মাগুরায় এমনি এক শিশুর চমকপ্রদ খবর মঙ্গলবার (২ আগস্ট) প্রকাশ করেছে বিবিসি বাংলা।

মাগুরার সেই বায়জিদ শিকদার সম্পর্কে বিশদ তথ্য উঠে এসেছে বিবিসির মোয়াজ্জেম হোসেনের প্রতিবেদনে।

ডাক্তারদের ধারণা, অত্যন্ত বিরল এবং জটিল কোনো জেনেটিক রোগে আক্রান্ত বায়জিদ। এ ধরণের বিরল ‘জেনেটিক ডিজঅর্ডারে’ আক্রান্ত আরও একশোর বেশি শিশু আছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। ডাক্তারি ভাষায় এর নাম ‘প্রোজেরিয়া’ বা ‘হাচিনসন-গিলফোর্ড প্রোজেরিয়া সিনড্রোম’।

২০১২ সালের ১৪ই মে জন্মগ্রহণ করা বায়জিদ যে রোগে আক্রান্ত তাতে রোগী দ্রুত বুড়িয়ে যেতে থাকে। , স্বাভাবিকের চেয়ে প্রায় ছয়গুন দ্রুত হারে। যদিও বায়জিদ শিকদার ঠিক প্রোগেরিয়াতেই আক্রান্ত কিনা, সেটা কোনো চিকিৎসক এখনো বলেননি তার বাবা মাকে। তবে বায়জিদের সমস্ত লক্ষণই মিলে যায় প্রোজেরিয়ার যে লক্ষণ তার সঙ্গে।

বায়জিদের বাবা লাভলু শিকদার আর মা তৃপ্তি খাতুন থাকেন মাগুরার খালিয়া গ্রামে। বায়জিদ তাদের প্রথম সন্তান। ২০১২ সালের ১৪ই মে মাগুরার এক সরকারি হাসপাতালে বায়জিদের জন্ম দেন তৃপ্তি খাতুন।

লাভলু শিকদার রঙ মিস্ত্রীর কাজ করেন। টানা-টানির সংসার। সন্তানকে দেখাতে গিয়েছিলেন ফরিদপুরের হাসপাতালে।

শিশুটির বাবা লাভলু শিকদার জানান, বায়জিদ হাঁটা, চলাফেরা, কথাবার্তা সবই আর সব শিশুর মতো। তবে সে প্রচুর কথা বলে, অনেক বড় মানুষও এত কথা বলতে পারবে না। চার বছরের শিশুর তুলনায় সে অনেক বেশি কথা বলে।

তিনি আরো বলেন, ‘বায়জিদ এখনো স্কুলে যাওয়া শুরু করেনি। বাড়িতেই সে পড়ালেখা শুরু করেছে। বই কিনে দিয়েছি। বাড়িতেই সে পড়াশুনা করে তার স্মরণশক্তি খুব ভালো। কিছু একবার শুনলে বা পড়লেই সে মনে রাখতে পারে।’