ছিনতাই ও নারী নির্যাতনের অভিযোগে বরিশালে কাওছার-ইলিয়াছ গ্রেফতার

0
35

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ছিনতাই ও নারী নির্যাতনের অভিযোগে কাওছার হোসেন ও ইলিয়াছ কবিরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার(২৫ অক্টোবর) সকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কোতয়ালী থানা পুলিশ নগরীর মল্লিক রোডের ড্রীম প্যালেসে অভিযান চালিয়ে পলাতক এ দুই আসামীকে আটক করে।

আটক কাওছার হোসেন নগরীর ৪ নং ওয়ার্ডের মৃত নুরু মিয়ার ছেলে। এ বছর সিটি নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে অংশ নিয়ে জামানত হারায় কাওছার। কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করে জামানত হারিয়ে বেপরোয়া হয়ে উঠে এ বিএনপি ক্যাডার। আটকের পর এদেরকে ছাড়িয়ে নিতে থানায় ভীর করে একটি চক্র।

তবে নানা লবিং তদ্বির করেও ছিনতাই ও নারী নির্যাতনের মামলার এ দুই আসামীকে থানা হাজত থেকে ছড়িয়ে নিতে ব্যর্থ হয় তাদের সহযোগীরা।

তবে থানা পুলিশকে ম্যানেজ করতে না পারলেও কোর্ট পুলিশকে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে গারদে না প্রবেশ না করিয়ে গারদের সামনে চেয়ারে বসে থাকতে দেখা যায় কাওছারকে।

মামলার বাদী নগরীর মল্লিক রোডের ড্রীম প্যালেসের বাসিন্দা মিজানুর রহমান জানান-কাওছার হোসেন মল্লিক রোডের ড্রীম প্যালেসের একটি ফ্লাটে তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বাসায় বসবাস করে। এই ফ্লাটের মালিক তার দ্বিতীয় স্ত্রী।

একই ভবনে অন্য এক ফ্লাটে বসবাস করে তার সহযোগী ইলিয়াছ কবির। কয়েক মাস পূর্বে ওই ফ্লাটের বাসিন্দাকে দুই সন্তানসহ দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে বিয়ে করে কাওছার। এরপরই ওই বাসায় থাকতে শুরু করে কাওছার। কাওছার ও তার সহযোগী ইলিয়াস কবির ড্রীম প্যালেসের বাসিন্দাদের সাথে খারাপ আচরন ও ক্ষমতার প্রভাব বিস্তার করার চেষ্টা চালায়।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানাগেছে-অগ্রনী হাউজিং লিমিটেট এর নগরীর মল্লিক রোডে নির্মিত ড্রীম প্যালেসের এ্যার্প্টামেন্ট ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি আ: আজিজ হাওলাদার ও সাধারন সম্পাদক মামলার বাদী মো: মিজানুর রহমান।

গত ২০ সেপ্টেম্বর এ্যাপর্টমেন্ট এসোসিয়েশনের সভা চলাকালে সভায় উপস্তিত হয়ে এজেন্ডার বাইরে কথা বলা শুরু করলে বাদ সাধে সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মামলার বাদী মিজানুর রহমান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মিজানুর রহমানের উপর হামলা চালায় ক্ওাছার হোসেন ও ইলিয়াস কবির।

এ সময় তার পকেটে থাকা ২৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় কাওছার ও ইলিয়াস। বাদীর স্ত্রী তাদের হাত থেকে উদ্ধার করতে এলে তার পোশাস ধরে টান হেচরা শ্লীলতাহানী ঘটায় কাওছার ও ইলিয়াস এমন দাবী মিজানুর রহমানের। হামলা,মারধর-ছিনতাই ও নারী নির্যাতনের অভিযোগে কোতয়ালী থানায় মামলা দায়ের করে মিজানুর রহমান।

এ ঘটনায়  বৃহস্পতিবার কাওছার হোসেন ও ইলিয়াসকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করে কোতয়ালী থানা পুলিশ। পরে আদালত তার জামিন মঞ্জুর করে।