ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে সেবা’র নামে ভোগান্তি’র শিকার রোগীরা

0
139

ঝালকাঠি প্রতিনিধি।।

ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা’র নামে ধাপ্পাবাজি চলছে। সদর হাসপাতালে বর্হিবিভাগ,জরুরি বিভাগে,্এছাড়া ভর্তি হওয়া রোগীরা চড়ম ভোগান্তিতে পড়ছে। বর্হিবিভাগে প্রায়ই ডাক্তার থাকে না,থাকলেও রোগীরা কাছে যেতে পারে না, কেননা ঔষধ কোম্পানির প্রতিনিধি’রা ডাক্তারকে ঘিরে রাখে।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক নারী রোগী অভিযোগ করেন তাঁদের অনেক গোপনীয় সমস্যা’র জন্য ডাক্তারের কাছে গেলে ঔষধ কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি’রা ফাল ফাল করে তাকিয়ে থাকে ও মিট মিট করে হাসে। এ জন্য তাঁরা সদর হাসপাতালে ডাক্তার দেখাতে যেতে লজ্জা পাচ্ছেন। অন্য আরেক রোগীনী অভিযোগ করেন কোন রকম ডাক্তার দেখাতে পারলেও ডাক্তারের সামনেই ঔষধ কোম্পানির প্রতিনিধি’রা চিকিৎসা’র ব্যাবস্থাপত্র খানা ধমক দিয়ে নিয়ে যান।

এর পরে শুরু হয় টানাটানি। ডাক্তার চেম্বার থেকে বেড় হতেই না হতেই ডায়গোনেষ্টিক সেন্টারের দালালেরা টানাটানি করে নিয়ে যান তাঁদের নিজস্ব ডায়াগনেষ্টিক সেন্টারে পরীক্ষা করার জন্য। অন্য দিকে সদর হাসপাতালে সকল ধরনের স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা থাকলেও জরুরি ও বর্হিবিভাগের কর্মচারি’রা অপারগতা প্রকাশ করেন। বেলা ১২ টা বাজলেই বিভিন্ন অজুহাতে পাশ কাটিয়ে চলে যান।

সহজ সরল মানুষদের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দালালেরা ভুল বুজিয়ে প্রাইভেট স্বাস্থ্য পরীক্ষা কেন্দ্রে নিয়ে যান আর গুনতে মোটা অংকের টাকা।যেমন:-মমতাজ, বাণী ,স্কয়ার,পপুলার ডায়গোনেস্টিক সেন্টার নামের কসাইখানাগুলো রোগীদের সর্বশান্ত করছে।

এ বিষয়ে এলাকা সুত্রে জানা যায় ঐ সকল ডায়গোনেস্টিক সেন্টারে মালিক’রা প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় এই ব্যাবসা কার্য চালিয়ে যাচ্চেন।ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের কর্মচারি, ডায়গনেস্টিক সেন্টারের দালাল এবং ঔষধ কোম্পানির বিক্রয়-প্রতিনিধি’র কাছে জিম্মি হয়ে পরছে চীকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা।এ বিষয়ে সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক গোলাম ফরহাদ জানান বিষয়টি এড়িয়ে যান আর বলেন আমরা কি করব,তারা আমাদের কথা শুনেতে চায় না।