ঝিনাইদহে গাঁজা চাষী আটক, এক’শ ৭০টি গাঁজার গাছ উদ্ধার

0
106

প্রতিনিধি ঝিনাইদহ।।

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার ১০নং বগুড়া ইউনিয়নের রতœাট গ্রাম থে‌কে ১৭০ টি গাঁজা গাছ সহ মকবুল (৫১) নামে এক গাঁজা চাষি মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর ।মঙ্গলবার ভোরে তার বাড়ির ঘেরাও করে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়। সে একই গ্রামের মৃত বুদই হোসেন শেখের ছেলে।

ঝিনাইদহ জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন কার্যালয়ের পরিদর্শক রাসেল আলী জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি আসামী তার বাড়ির পেছনের যায়গায় দীর্ঘদিন ধরে গাঁজা চাষ করে আসছে, এমন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার ভোরে অভিযান চালিয়ে আসামীকে আটক করা হয়েছে। এ সময় মকবুলের বাড়ির পেছন থেকে ১৭০টি গাঁজা গাছ উঠিয়ে জব্দ করা হয়।আসামী মকবুলের বিরুদ্ধে শৈলকুপা থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে । এসময় অভিযানে আরো অংশ নেন, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন কার্যালয়ের এএসআই শেখ আব্বাস উদ্দিন আহমেদ, কন্সটেবল জিএম শহিদুল ইসলাম, আব্দুল আজিজ খান, সাইদুল হক এবং জেলা পুলিশ লাইনের ০৪জন সদস্য।

শৈলকুপার বগুড়া ইউনিয়নের ইউপি সদস্য ও কয়েকজন স্থানীয় ব্যক্তি জানান, মকবুল শেখ হচ্ছে মশিয়ার মার্ডার কেচের অন্যতম আসামী।যাহার মামলা নাম্বার এস,সি ৪৯০। মকবুল একজন ছিসকে চোরও বটে। দীর্ঘদিন ধরে গাঁজা চাষসহ গাঁজা, ফেন্সিডিল,উয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদকের ব্যবসা করে আসছে। তারা বলেন, হাটফাজিলপুর পুলিশ ক্যাম্প ও সরকার দলীয় গডফাদারদের সহযোগিতায় মকবুল সহ কয়েকজন মাদকের ব্যবসা করে আসছে। বর্তমানে ১০নং ইউনিয়ন ও ১১নং ইউনিয়নে মাদকে সয়লাব হয়ে গেছে।সব চেয়ে বেশি ভয়াবহো আকার ধারন করেছে ১১নং আবাইপুর ইউনিয়নে। এ ইউনিয়নের সর্বত্র এখন মাদক সেবন ও মাদক ব্যবসা রমরমা আকার ধারন করেছে। নতুন প্রজন্মের উঠতি বয়সি ছেলেরা মাদকের ছোবলে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। দুইটি ইউনিয়নেই মাদক সেবনকারী ও মাদক ব্যবসায়ীরায় এলাকার আধিপত্য বিস্তারে সামাজিক গোলোযোগে জড়িত হয়ে পড়ে। বগুড়া ও আবাইপুর ইউনিয়নের মাদক ব্যবসায়ী ও তাদের গডফাদার চিহিুত করে আইনের আওতায় আনতে পারলেই এই এলাকা থেকে মাদক ব্যবসা ও মাদক সেবন বন্দ হওয়া সম্ভব বলে স্থানীয়রা মনে করেন। সে ক্ষেত্রে হাটফাজিলপুর ক্যাম্প পুলিশের ভূমিকায় মুখ্য। দুই ইউনিয়নে মাদক ব্যবসায়ী ও গডফাদারদের সাথে হাটফাজিলপুর ক্যাম্প পুলিশের দীর্ঘদিন অবস্থান রত কর্তাব্যক্তিদের অর্থ-বানিজ্যের সুসম্পর্ক্য রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে এই ক্যাম্পে থাকার কারনে এলাকার মাদক ব্যবসায়ী ও তাদের গডফাদারদের সাথে গড়ে উঠেছে নিবিড় সম্পর্ক।

অপর এক ঘটনায় শৈলকুপার মীনগ্রামে ত্যাগি আওয়ামী পরিবার হিসাবে এলাকায় পরিচিত মোতাহার মাষ্টার ও আব্দুল আওয়াল সরদারের নাতি ছেলে এবং সবুজের পুত্র ট্র্যাট্টন(২২)কে মঙ্গলবার সকালে প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুত্বর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।