ধর্ষণ মামলায় দোষী রাম রহিম ভক্তদের তাণ্ডব, নিহত ১২

0
44

সময়ের বার্তা ডেস্ক।।

ভারতে ধর্ষণ মামলায় ধর্মগুরু রাম রহিমকে দোষী সাব্যস্ত করে দেয়া রায়ের পরেই দেশটির পাঞ্জাব ও হরিয়ানা রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। সহিংস প্রতিবাদে হরিয়ানায় এ পর্যন্ত ১২ নিহত হওয়ার খবর জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

এনডিটিভি সাতজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে জানিয়েছে, রায়ের পরপরই পাঞ্জাব ও হরিয়ানা রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। সহিংসতায় প্রায় শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন।

শুক্রবার হরিয়ানার পাঁচকুলার একটি বিশেষ আদালত ধর্মগুরু রাম রহিমকে দোষী সাব্যস্ত করে রায় দেয়। রায় শোনার পরই কান্নায় ভেঙে পড়েন রাম রহিমের বহু সমর্থক। কেউ কেউ এই খবরটা শোনার পর জ্ঞানও হারান।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, রায় ঘোষণার পর রাম রহিমের ভক্তরা তাণ্ডব চালায়। অসংখ্য গাড়িতে আগুন ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। দিল্লিতেও বাসে আগুন দেয়ার খবর পাওয়া গেছে। রায় ঘোষণার পর আদালত চত্বরে হামলা হয়। লাঠি, বাঁশ, ইট-পাথর নিয়ে পুলিশের উপর হামলা হয়েছে। লাঠি চালিয়ে এবং কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটিয়েও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে না পেরে পাঁচকুলায় পুলিশ গুলি চালিয়েছে। ইনকাম ট্যাক্স অফিসে আগুন দিয়েছেন ভক্তরা।

শুধু পাঁচকুলাতেই নয়, পাঞ্জাবের দু’টি রেলওয়ে স্টেশনে ইতিমধ্যেই আগুন লাগিয়ে দিয়েছেন রাম রহিমের অনুগামীরা। দুই রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় থানা এবং সরকারি দফতরে আগুন লাগানো শুরু হয়েছে। পাঁচকুলায় ইতিমধ্যেই জারি হয়েছে কার্ফু। পঞ্জাবের ভাতিন্ডা, মনসা, মুকতাসর, ফিরোজপুরেও কার্ফু জারি হয়েছে।

চৌদ্দ বছর আগে ১১৯৯ সালে হরিয়ানার সিরসা শহরের কাছে অবস্থিত এলাকার ডেরা সাচা সওদার সদর দপ্তরের ভেতরে একজন শিষ্যকে রাম রহিম নিয়মিত ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ ওঠে। সেই ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। সোমবার তার বিরুদ্ধে সাজা ঘোষণা করবে আদালত। আইন অনুযায়ী তার সাত বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

শুক্রবার হরিয়ানা রাজ্যের পঞ্চকুলার বিশেষ সিবিআই আদালত বাবা রামকে ধর্ষণ মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে রায় ঘোষণা করে। রায়ের পর আদালত তাকে আমবালার অস্থায়ী কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়।

এরপর কড়া নিরাপত্তায় রাম রহিমকে নিয়ে কারাগারের পথে রওনা করে নয়টি গাড়ির বহর। এ সময় কান্নায় ভেঙে পড়ে তার ভক্তরা।