নীলফামারী সিভিল সার্জনের আদেশ জারী, স্যাকমোরা ‘ডাক্তার’ লিখতে পারবেনা

0
159

 

মহিনুল ইসলাম সুজন,নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি ॥

নীলফামারী সিভিল সার্জন ডা. রনজিৎ কুমার বর্মন সম্প্রতি এক আদেশ বলে, ডিপ্লোমা ডিগ্রীধারী স্যাকমোরা তাদের নামের আগে ডাক্তর লিখতে পারবেনা।

এনিয়ে সিভিল সার্জনকে আইনগত নোটিশ পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিডিএমএ)।

সিভিল সার্জনের (১৬ নভেম্বরের) আদেশ সূত্রে জানা যায়, বিএমডিসি এ্যক্ট/২০১০ অনুযায়ী নূন্যতম এমবিবিএস অথবা বিডিএস ডিগ্রীধারীগন ও বিএমডিসি রেজিস্ট্রেশন ভুক্ত ব্যতিত অন্য কেহ ব্যবস্থাপত্রে ডাক্তার পদবী ব্যবহার করতে পারবেন না।

তাই এখন থেকে কোন স্যাকমোই চিকিৎসা পত্রে বা সাইনবোর্ডে নামের পূর্বে ডাক্তার লিখতে পারবেন না। এই নির্দেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এই আদেশ জারী হওয়ায় স্যাকমোরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা বিষয়টি নিয়ে সিভিল সার্জনের সাথে দেখা করে কোর্টের স্থগিতাদেশের কথা জানান। সিভিল সার্জন তার আদেশের পক্ষে অটল থাকায় তারা নীলফামারী জজ কোর্টের এডভোকেট মুহাম্মদ আব্দুল লতিফের মাধ্যমে ২৮ নভেম্বর সিভিল সার্জনকে একটি আইনগত নোটিশ প্রদান করেন।

(বিডিএমএ) নীলফামারী জেলা সভাপতি ডা: মো: সৈয়দ মাসুদ হোসেন বলেন, বিএমডিসির এই আদেশের বিরুদ্ধে করা রীট পিটিশন হাইকোর্টে বিচারাধীন রয়েছে। সেখানে এক আদেশে বলা হয়েছে এর নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ডিপ্লোমা ডিগ্রী ধারীরা নামের আগে ডাক্তার লিখতে পারবেন।

তাদের বিরুদ্ধে বিএমডিসি এ্যক্ট/২০১০ বলে কোন প্রকার হয়রানী করা যাবেনা। অথচ সিভিল সার্জন কোর্টের আদেশকে তোয়াক্কা না করে ১৬ নভেম্বর মনগড়া আদেশ জারী করেছেন।

নীলফামারী সিভিল সার্জন ডা: রনজিৎ কুমার বর্মন বলেন, আমি বিএমডিসি এ্যক্ট/২০১০ অনুযায়ী আদেশ জারী করেছি। আদালতের স্তগিতাদেশ আছে কিনা আমার জানা নেই।

তিনি আরো বলেন, আমি নিয়মতান্ত্রিক ভাবে আইনের মাধ্যমে নোটিশের জবাব দেব।