প্রতিবন্ধী তিন বোনের শ্বপ্ন কেড়ে নিয়েছেন নিজের আপন ভাই

0
84

মেহেরপুর প্রতিনিধি।।

ওরা তিন বোন।মেহেরুন নেছা(৪৪), রীনা খাতুন (৩৭) আর চুমকি খাতুন (৩৫)। তিন জনেরই উচ্চতা সর্বোচ্চ আড়াই ফুট। অথচ ওরা সুন্দর রুপ ও গুনের অধিকারী অন্য মেয়েদের মতো তাদেরও আছে আবেগ, অনুভূতি, সুস্থ ও স্বাভাবিক ভাবে বেঁচে থাকার ইচ্ছা, স্বামী-সংসার আর সন্তান-সন্ততির প্রত্যাশা।

কিন্তু প্রকৃতি ওদের সে স্বপ্ন-সাধ বিলিন করে দিয়েছে। কারণ ওরা শারীরিক ভাবে প্রতিবন্ধী। প্রচলিত কথায় যাদের বলা হয় ‘বামন’। প্রকৃতির নির্মম এই নিষ্ঠুরতাকে মেনে নিয়েই ওরা এতদিন বেঁচে ছিল পরিবারে আর সমাজের গলগ্রহ হয়ে। আর একারনেই দিনের বেলাতে বাড়ির বাইরে বের হতো না। বাবা-মায়ের মৃত্যুর পরও নিরবে কাটিয়ে দিতে চেয়েছিল জীবনের বাকি দিনগুলো। হাত পাতেননি কখনও কারো কাছে।

বাবার মুক্তিযোদ্ধা ভাতার প্রাপ্ত টাকায় তাদের কোনোরকম সংসার চলে। কিন্তু বাধা হয়ে দাড়িয়েছে নিজের আপন ভাই। তাদের এই স্বপ্নটুকু কেড়ে নিতে চাচ্ছেন তিনি। বাবার দেয়া মাথা গোঁজার জমিটুকুতে নজর পড়েছে আপন ভাই সামসুল শেখের। মেহেরপুর জেলা শহরের বোসপাড়ার বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী মরহুম সোহরাব শেখের এ তিন কন্যা সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন- মানুষের অন্যরকম চাহনির কারণে প্রয়োজন ছাড়া খুবএকটা বাইরে বের হতে পারেনা। শারীরিক সমস্যার কারণে স্কুলে যাওয়া হয়নি।

রাস্তায় বের হলেও মানুষের অবান্তর প্রশ্ন তাদের ঘরবন্দি করেছে।
মেহেরুন জানান, বাবা-মা বেঁচে থাকতে ছায়া ছিল। বাবা-মা মারা যাওয়ার পর এখন আপন ভাই ভিটেবাড়ি থেকে উচ্ছেদে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে। অথচ বাবা তাদের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে বাড়ির ৫ শতক জমি দলিল করে দিয়েছে তিন বোনের নামে। এখন তার ভাই সামসুল দাবি করছে বাবা তাকেও নাকি দিয়ে গেছে দলিল করে। ভুয়া সেই দলিলে জমি খারিজও করে নিয়েছে নিজ নামে। এখন প্রতিদিন তাদের বাড়ি ছাড়ার জন্য হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। রীনা খাতুন জানান, বাবার মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকায় তাদের কোনোরকম সংসার চলে। রাতের বেলা তিন বোন আতংকে থাকেন।

এখন ঘর দিয়ে পানি পড়ে। ঘর মেরামতের মতো টাকা নেই। তাদের শেষ ইচ্ছা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একবার হাত দিয়ে ছুঁয়ে তাদের কষ্টের কথা জানাবার। তিন বোনের সহোদর সামসুল শেখের সঙ্গে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। মেহেরপুরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) সামিউল হক বলেন, অনেক সময় ভুলবশত জমি খারিজ হয়ে যায়। বিধান অনুযায়ী অভিযোগ করলে খারিজ বাতিলেরও বিধান আছে।