ফেনীর পরশুরাম প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের টিও মিজানের দুর্নীতির ফিরিস্তি পথম পর্ব

0
140

স্টাফ রিপোর্টার।। ফেনীর পরশুরাম উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের ভারপ্রাপ্ত টিও মিজানুর রহমানের নের্তৃত্বে প্রথামিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগ ও শিক্ষক বদলীর বানিজ্য করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
মিজানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির আজ থাকছে প্রথম পর্ব।

অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে মিজানের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে দুদক ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন ফেনীর পরশুরাম উপজেলা আওতাধীন উপজেলার ৩য় ধাপে দপ্তরি কাম প্রহরী পদে ১২ জনকে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের নির্দেশ উপেক্ষা করে অবৈধ ভাবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

নিয়োগ প্রাপ্তদের কাছ থেকে জন প্রতি ৭ থেকে ১০ লক্ষ টাকা করে হাতিয়ে নেন টিও মিজান। টিও মিজান তৎকালীন ইউএনও রাসেলুল কাদেরের সহায়তায় শিক্ষক তাপস ভৌমিকের সাহায্যে এই নিয়োগ বানিজ্য করেন।

উচ্চ আদালতের নির্দেশ ক্রমে নিয়োগের উপর সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তর থেকে বাতিল আদেশ দেয়ার পর ক্ষমতার অপব্যবহার করে নিয়োগ বাতিল আদেশের পূর্বের তারিখ দিয়ে নিয়োগ প্রদান করার অভিযোগ উঠে।

দপ্তরী নিয়োগ বাতিল আদেশের পূর্বের তারিখ দেয়া হলেও নিয়োগের সময় নিয়োগ প্রাপ্তদের বেতন চাওয়া হয়নি সংশ্লিষ্ট দপ্তরে। পরবর্তীতে ৩য় ধাপে নিয়োগকৃত দপ্তরীরা বেতন না পাওয়ার বিষয়টা নিয়ে দাপ্তরিক ও রাজনৈতিকভাবে নাড়াচাড়া শুরু করলেও তাড়াহুড়া করে বরাদ্দ চেয়ে আবেদন পাঠানো হয়।

এদিকে যারা সত্যিকারের যোগ্য প্রার্থী ছিল তাদের কাছে মোটা অংকের অর্থ দাবী করেন প্রথম ধাপের নিয়োগপ্রাপ্ত দপ্তরী সাইদুলকে দিয়ে।
ভারপ্রাপ্ত টিও মিজানের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বিকার করেন।