বরিশাল শেবাচিমে ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হানের চিকিৎসায় ফাঁকিবাজি ! স্বাক্ষর জাল করে চিকিৎসা দিচ্ছেন শান্তা

0
925

স্টাফ রিপোর্টার॥ শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (শেবাচিম) বহিঃবিভাগের চিকিৎসক ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হান হাসপাতালে না এসে অপর চিকিৎসক দিয়ে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন রোগীদের। গতকাল সকালে সরেজমিনে গিয়ে তার কর্মস্থল মেডিসিন বহিঃবিভাগে ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হানের স্থলে চিকিৎসক ডা. শান্তাকে রোগীদের চিকিৎসা দিতে দেখা গেছে।

এছাড়া ডা. শান্তা অনৈতিকভাবে ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হানের সিল ও স্বাক্ষর ব্যবহার করে রোগীদের বিভিন্ন প্রাইভেট ডায়াগনস্টিকে পাঠাচ্ছেন। এতে করে যথাযথ চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছে অনেক রোগী। এদিকে ডা. শান্তা রোগীদের অহেতুক বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা দিয়ে তার পছন্দের ডায়াগনস্টিকে পাঠাচ্ছেন। এ নিয়ে অনেক রোগীর মধ্যে ক্ষোভ লক্ষ্য করা গেছে। কিন্তু ডা. রেজওয়ানুর আলম ছুটি দেখিয়ে প্রাইভেট চেম্বারে রোগী দেখছেন বলে জানা গেছে।

গত রবিবার বাবুগঞ্জ থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীর স্বজন জাকারিয়া জানান, আমার বোনের বেশ কিছু দিন ধররে বুকে ব্যথা। পরে আমি শেবাচিমের বহিঃবিভাগে নিয়ে আসি। সেখানে কতব্যরত চিকিৎসক ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হান বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা দেন। প্রাইভেট ডায়াগনস্টিকে না গিয়ে মেডিকেলে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করিয়ে রিপোর্ট দেখাতে যাই। এতে ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হান তার পছন্দের ডায়াগনস্টিকে না যাওয়ায় সে ওই রিপোর্ট না দেখে আমার বোনের সাথে খারাপ আচরন করে।

রোগীদের সাথে প্রায় সময়ই ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হান রোগীদের সাথে দূর্বব্যহার করে। হাসপাতালের প্রশাসনিক সূত্রে জানা যায়, ডা. রেজওয়ানুর আলম গতকাল সকাল ১১টায় ছুটির একটি আবেদন জমা দিয়েছেন।

সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ৫ বছর ধরে ধরে ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হান নিজেকে স্বাচিপ নেতা দাবি করে বহিঃবিভাগে আধিপত্য বিস্তার করে আসছে। কোন হাসপাতাল পরিচালকের অধীনে কোন চিকিৎসক ২বছর কর্মস্থলে থাকার পর তাকে অন্যত্র বদলী করার নির্দেশনা থাকলেও ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হান ৫ বছর ধরে শেবাচিম হাসপাতালের একই স্থানে চাকরি করে আসছে।

অথচ কিছুদিন পূর্বে শেবাচিমের মেডিসিন বহিঃবিভাগের চিকিৎসক ডা. সুবল কৃষ্ণ কুন্ডুকে ৩বছর পূর্ণ না হতেই কর্তৃপক্ষ তাকে বদলী করে দেন। ৫ বছর ধরে একই স্থানে ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হান চাকরি করে আসলেও ক্ষমতার দাপটে সে পাড় পেয়ে যায়। যে কারনে বহিঃবিভাগে নিজের ইচ্ছেমত সব কিছু করে যাচ্ছেন।

এছাড়া অভিযোগ রয়েছে হাসপাতালের সকল প্রকার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার ব্যবস্থা থাকলেও পার্সেন্টিজ বাণিজ্য করতে ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হান রোগীদের মেডিকেলের বাইরে তার পছন্দের ডায়াগনস্টিকে পাঠিয়ে দেন। সেখানে তার কম্পাউন্ড দিয়ে পার্সেন্টিজের টাকা আদায় করে।

এ বিষয়ে শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. বাকির হোসেন জানান, ডা. রেজওয়ানুর আলম রায়হান ২দিনের ছুটিতে আছেন। তার অবর্তমানে কেউ যদি সিল ব্যবহার করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা দেয় সেটা সে অন্যায় করেছে।