বাবুগঞ্জে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে চলছে কোটি টাকার জুয়া!

0
849

স্টাফ রিপোর্টার !! মাদক এবং জুয়ার বিরুদ্ধে যখন দেশজুরে সরকার ও প্রশাসন যুদ্ধ ঘোষনা করেছে তখন বাবুগঞ্জে প্রশাসনের নাকের ডগায় জমে উঠেছে জুয়ার জগতের সবচেয়ে বড় আসর কথিত “ওয়ান টেন শুটার”।
একাধিক সূত্র জানিয়েছে, আসরটি জমেছে বাবুগঞ্জ থানা সংলগ্ন সুগন্ধা নদীর ওপারে রহমতপুর ইউনিয়নের বোয়ালিয়া ও কেদারপুর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তি এলাকায় গণি সরদারের বাড়ি। জুয়ারিদের অভয়াশ্রমে পরিনত হয়েছে ওই যায়গাটি। ফলে জুয়ার পাশাপাশি মাদক ব্যবসা ছড়িয়ে পরছে কেদারপুর এলাকায়।

গত দু’দিন যাবৎ ওই জুয়ার আসর মধ্য রাতে শুরু হয়ে ফজরের আজান পর্যন্ত চলে হরমায়েশে। যখন সাধারণ মানুষ ঘুমে ব্যস্ত তখন দুর দুরান্ত থেকে নাম করা জুয়ারিরা এসে ভিড় জমায় টাকার ঝুড়ি নিয়ে । পুুলিশ প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই চলছে এসব জুয়ার আসর বলে স্থানীয়দের মধ্যে গুঞ্জন উঠেছে ।

উপজেলাটির কেদারপুর এবং দেহেরগতি ইউনিয়নে জুয়া চলে আসছিলো দীর্ঘ দিন যাবৎ কিন্তু গত দু’দিন যাবৎ এতে ওয়ান টেন শুটার নামে কোটি টাকার খেলা যোগ হওয়ায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয়রা বলছেন এ কারনে এলাকায় চুরি, ডাকাতি ,ছিনতাই, রাহাজানির মত অপরাধ বেড়ে যাওয়ার শংঙ্কা দেখে দিয়েছে। ধংস হয়ে যাবে এলাকার যুব সমাজ। সূত্র জানায়, স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল আলী ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের নেতৃত্বে থানা পুলিশকে ম্যানেজ করে উজিরপুরের জুয়ারি কামরুল ও তার সহযোগী কালাম ওরফে (যাত্রা কালম) ওই জুয়ার আসর বসিয়েছে।

পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ ও জুয়ার কথা অস্বীকার করে বাবুগঞ্জ থানার ওসি দিবাকর চন্দ্র দাস বলেন, গত মঙ্গলবার এবং বুধবার রাতে জুয়ার আসরের সংবাদ পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে প্রেরণ করা হয়েছিল কিন্তু সত্যতা পাওয়া যায়নি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুজিত হাওলাদার বলেন, উপজেলার প্রতিটি আইনশৃংখলা সভায় এ সংক্রান্ত ব্যপারে থানার ওসি,সকল ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সামাজিক ভাবে প্রতিহত করার নির্দেশ দেয়া আছে। জুয়ার ব্যপারে এখনও কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি, পেলে অবশ্যই যথাযথ ব্যপস্থা গ্রহণ করা হবে।