বেনাপোলে আদালতের আদেশ অমান্য করে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে বসত ভিটার জমি জবর দখল

0
135
বেনাপোল প্রতিনিধি(যশোর)।।
মহামান্য আদালতের দেওয়া আদেশ অমান্য করে পোর্টথানা পুলিশের সহোযোগীতায় বহুল আলোচিত বেনাপোল পৌর এলাকার দূর্গাপুর গ্রামের গোস বিক্রেতা আনোয়ার হোসেন খোকনের পৈত্রিক ভসত ভিটার জমি জবর দখল করা হয়েছে।
দূর্গাপুর গ্রামের সন্ত্রাসী মুকুল,মহাসীন ও মধু মেম্বার গং তার লালিত গুন্ডা বাহিনী দ্বারা প্রকাশ্য দিবালকে ভাংচুর,অগ্নি সংযোগ,ফলন্ত গাছ কাটা, ভিটায় বাসরত খোকনের পরিবারের সদস্যদের লাঞ্চিত করা সহ জোর জবরদস্ত ভিটা জমিতে ১২০ ফুট লম্বা ও ৫ ফিট উচ্চতার পাচিল নির্মানের মত ন্যাক্কার জনক ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ জানিয়েছে ভ’ক্তভোগী পরিবারটির প্রতিবেশীরা।
ঘটনা সুত্রে জানা যায় ১৭ জুলাই সোমবার সকালে মধুর নেতৃত্বে এলাকার খুনী ও চিহিন্ত সন্ত্রাসীরা সহ আনুমানিক ১শত লোক লাঠি,সোটা,দা,কুরুল নিয়ে গোস বিক্রেতা আনোয়ার হোসেনের জমি হতে রান্নাঘর,গোসলখানা,ছাগলের খোয়াড় জ্বালিয়ে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে এলাকাবাসীকে আতঙ্ক গ্রস্ত করে তোলে।তাদের তান্ডবের মূখে স্থানীয় গ্রামবাসীকে ভ’ক্তভোগী পরিবারটির বসত ঘর হতে আধা কিঃমিঃ এরিয়ার মধ্য প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।আগুনের লেলিহান শিখা দেখে গ্রামবাসী ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে তারা এসে দীর্ঘ ১ঘন্টার প্রচেষ্ঠায় আগুন নেভায়।বসত ভিটা হতে উচ্ছেদ হওয়া পরিবারের পহ্মে আনোয়ার হোসেন খোকনের বৃদ্ধা মা রিজিয়া খাতুন(৭৩) অভিযোগ জানিয়ে বলেন,আমার ছেলে ও বৌমা সন্ত্রাসীদের তান্ডব চলাকালীন সময়ে  বেনাপোল পোর্ট থানায় বারং বার গিয়ে উদ্ধার সাহায্য চাইলেও থানা হতে কোন প্রকার সহযোগীতা করা হয়নী।
পরর্বতীতে টিওন সাহেবের কাছে গিয়ে ঘটনা জানালে শার্শা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা বেনাপোল পোর্টথানাকে ঘটনা স্থলে যাওয়ার আদেশ দেন। পোর্ট থানা সে আদেশ অগ্রাহ্য করে।গত ২১-৬-২০১৭ ইং তারিখে বিবাদমান জমির উপর ১৪৪ধারা উপর বিঙ্গ আদালত এর দেওয়া আদেশে বাদী বিবাদী কে নিজ নিজ দখলীয় জায়গায় শান্তিপূর্ন ভাবে বস বাসের আদেশ জারী থাকলেও বিবাদী মুকুল প্রচুর কালো অর্থের প্রভাবে আদেশ অমান্য করে গোস বিক্রেতার জমি দখলে নিলো বলে জানালেন খোকনের প্রতিবেশী বাবু।সম্প্রতি বে দখল হওয়া পরিবারটি তাদের উচ্ছেদ করে জমি জবর দখল হওয়ার আশংকায় বিগত ৩-৪ মাস আগে সংবাদ সন্মেলন করে সমাজের সকলের কাছে সহোযোগীতা চাইলেও ভ’মি খেগো মুকুল,মহাসীন ও মধু মেম্বারদের তান্ডবের মুখে কেউ সহোযোগীতা করতে পারলনা অসহায় পরিবারটির।