রিচ ফর হিউম্যানিটির ইউ.কে পাইথংখালী রোহিঙ্গাদের ত্রাণ বিতরণ

0
71

মো:জহিরুল ইসলাম,পাইথংখালী উখিয়া থেকে ফিরে।।

কক্সবাজারের উখিয়ার পাইথংখালী ৬ নং রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে রিচ ফর হিউম্যানিটি ইউ.কে’র প্রতিনিধিদল রোহিঙ্গাদের মধ্যে ১৭ টন ত্রাণ বিতরণ করেন। ত্রাণের মধ্যে ছিল চাল, ডাল, শিশুখাদ্য,দুধ,ঔষধ,লুঙ্গী,এবং গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ম্যাক্সি, কম্বল, শিশুদের জন্য খেলনা সেনাবাহিনীর নিকট হস্থান্তর করা হয়।

উখিয়ার পাইথংখালীর শরণার্থী শিবিরের মেজর মাহবুন্নবী এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রত্যÿ আন্তরিক সহযোগিতায় উদ্বাস্থু রোহিঙ্গাদের মধ্যে এ ত্রাণ বিতরণ করা হয়।এছাড়াও ধর্মীয় গ্রন্থ ও তসবী শরনার্থী শিবিরের মসজিদের ইমামের নিকট প্রদান করা হয়।

গত শনিবার রাতে উখিয়ার উদ্দেশে শ্রীমঙ্গল থেকে এই প্রতিনিধি দল যাত্রা শুরু করে।সেখানে পৌছে রবিবার সন্ধ্যায়।সোমবার ও মঙ্গলবার উখিয়ার ও পাইথংখালী শিবির গুলো পর্যবেÿণ করেন প্রতিনিধি দলের সদস্যরা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন রিচ ফর হিউম্যানিটি, ইউ.কে.এর ৬ সদস্যের প্রতিনিধিদল তারা হলেন রেফুল মিয়া, চেয়ারম্যান কুইন্স পার্ক বাংলাদেশ এসোসিয়েশন, খসরু মিয়া, ইসমাইল খালিক,রকিব মিয়া,এম.এ.মুয়িদ, এম.এ রব। এসময় আরোও উপস্থিত ছিলেন প্যানেল চেয়ারম্যান মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ সদস্য রেজওয়ানা ইয়াসমিন সুমি, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ সদস্য ও সাংগঠনিক সম্পাদক বাংলাদেশ জেলা পরিষদ মেম্বারস এসোসিয়েশন বদরুল ইসলাম,মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ সদস্য ও সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশ জেলা পরিষদ মেম্বারস এসোসিয়েশন এম এ আহাদ, সদস্য জেলা মৌলভীবাজার পরিষদ ও কার্যকরী সভাপতি বাংলাদেশ জেলা পরিষদ মেম্বারস এসোসিয়েশন রওনক আহমেদ অপু, ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলা পরিষদ সদস্য ও সভাপতি বাংলাদেশ জেলা পরিষদ মেম্বারস এসোসিয়েশন বাবুল মিয়া,রংপুর জেলা পরিষদ সদস্য আসমা আশরাফ, নেত্রকোণা জেলা পরিষদ সদস্য আল আমিন, দৈনিক আমার বার্তা,দৈনিক প্রজন্ম ডট কম মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ও শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মোঃ জহিরুল ইসলাম।

পুরো কার্যক্রমটি সার্বিকভাবে তত্বাবধান ও সমন্বয় করেন মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের সদস্য মশিউর রহমান রিপন শ্রীমঙ্গল।

রিচ ফর হিউম্যানিটি, ইউ.কে’র ৬ সদস্যের প্রতিনিধিদল কক্সবাজারের উখিয়ার পাইথংখালী ৬ নং রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পুরোটা পর্যবেÿণ করেন।এসময় তারা জানান,টিভিতে পেপারের এদের সংবাদ পড়ে যতটা হৃদয়ে কষ্ট পেয়েছি সরাসরি বাংলাদেশে এসে এদের অসহায়ত্বে কষ্ট দেখে মিয়ানমারে সরকার ও সেনা অভিযানের নির্যাতনকারীদের আর্ন্তজাতিক আদালতে বিচারের দাবী জানাচ্ছি। রোহিঙ্গা সংকটের সমস্যা সমাধানে বিশ্ব নেতার জরুরী উদ্যোগ নেওয়ার দাবী জানাচ্ছি। আগামীতে রোহিঙ্গাদের ত্রাণ সহযোগীতা অব্যাহত থাকবে।