শিশু আর্জিনা উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেলে স্থানান্তর

0
199

নীলফামারী থেকে মহিনুল ইসলাম সুজন।।

ফলো আপ…

বর্তমানের সভ্য যুগে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্মম নির্যাতনের শিকার হওয়া শিশু গৃহকর্মী আর্জিনা(১৩)কে মঙ্গলবার বিকালে উন্নত চিকিৎসার জন্য নীলফামারীর ডিমলা  হাসপাতাল হতে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

সেখানে সার্জারী বিভাগের ১৬ নম্বর ওয়াডে তাকে ভর্তি করা হয়।

তবে এ ঘটনায় এখনও মামলা করতে পারেনি তার পরিবার। আর্জিনার মা আরো বলেন আমার মেয়েকে সুস্থ্য করে তুলে টাঙ্গাইলে গিয়ে মামলা দায়ের করবো। এ জন্য তাদের আইনী সহায়তা দিতে চেয়েছেন ঢাকার আইন ও সালিশ কেন্দ্রের আইনজীবী শিল্পী সাহা।

গত রবিবার(২ অক্টোবর) আমাদের এই পত্রিকায়সহ দেশের বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকায় ও অনলাইন নিউজপোর্টালে বিস্তারিত সংবাদ  প্রকাশের পর নির্যাতিত শিশু গৃহকর্মী আর্জিনাকে চিকিৎসা সহায়তার জন্য ২০ হাজার টাকা দিয়েছেন লন্ডন প্রবাসী মাদারীপুরের আব্দুল জলিল।

মঙ্গলবার লন্ডন হতে ওই টাকা রুপালী ব্যাংক ডিমলা শাখার মাধ্যমে প্রেরন করেন নির্যাতিতর পরিবারের কাছেই। ব্যাংকের ব্যবস্থাপক আবু সাঈদ চৌধুরী সকালে সেই ২০ হাজার টাকা আর্জিনার মায়ের হাতে তুলে দেন।

এবং সহযোগীতাকারী আব্দুল জলিল জানায়, চিকিৎসার যত টাকা লাগবে তিনি তা ব্যয় করবেন। পাশাপাশি তাদের আইননী সহায়তার কথাও বলেন তিনি। এদিকে ঢাকার আইন ও সালিশ কেন্দ্রের আইনজীবী শিল্পী সাহা  ঢাকা হতে  মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের, নির্মম নির্যাতনের শিকার মেয়েটিকে টাঙ্গাইল আদালতে নিয়ে গিয়ে মামলা করতে সকল খরচ আইন ও সালিশ কেন্দ্র বহন করবে।

ডিমলা হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার ডাঃ ইয়াসমিন ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, শিশু মেয়েটি যথাসাধ্য চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে  উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে রংপুর মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

উল্লেখ যে, শিশু গৃহকর্মী আর্জিনা(১৩) গত রবিবার দুপুরে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছিল।

সে নীলফামারীর ডিমলার তিস্তা নদীর ওপারে লালমনিরহাট জেলার হাতিবান্ধা উপজেলার আরাজি শেখ সিন্ধু গ্রামের  আনছার আলী ও মা আনজু বেগমের মেয়ে। সে গত ৭ বছর ধরে টাঙ্গাইল জেলা শহরের পৌর এলাকার ১৭ নম্বর ওয়াডের বিশ্বাস বেতকা মহল্লার শিবনাথ পাড়ার আমির আলীর ছেলে তাজুল ইসলামের বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করতো। মেয়েটিতে ওই বাড়িতে কাজের জন্য নিয়ে গিয়ে দেয় ডিমলার সুঠিবাড়ির শাহিনুর নামের এক ব্যাক্তি। অভিযোগ গৃহকর্মীর কাজ করতে গিয়ে ওই বাড়ির গৃহকর্তার স্ত্রী আমেনা বেগম ও তাদের মেয়ে লাভলী আক্তারসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্মম নিষ্ঠুর নির্যাতনের শিকার হয় আর্জিনা।

গত শনিবার রাতে আর্জিনাকে তার দাদা নুরু মিয়া টাঙ্গাইল হতে অসুস্থ্য অবস্থায়  নিয়ে আসে।এরপর এলাকাবাসীর সহায়তায় তাকে ডিমলা সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।