সরকার চাইলে আগাম নির্বাচনে প্রস্তুত ইসি: সিইসি

0
27

সময়ের বার্তা ।।

সরকার চাইলে আগাম নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য নির্বাচন কমিশন (ইসি) প্রস্তুত রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। বুধবার সন্ধ্যায় আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি এ কথা বলেন। এর আগে সিইসির সঙ্গে বিকেল চারটা থেকে সাড়ে চারটা পর্যন্ত বাংলাদেশে নিযুক্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত রেনসিয়ে টিয়েরিংক এর সাথে বৈঠক করেন।

একটি রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে দলীয় নেতা কর্মীদের আগাম নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার জন্য বলেছেন দলের সাধারণ সম্পাদক। সেই ক্ষেত্রে সরকার যদি চায় তাহলে নির্বাচন কমিশন আগাম নির্বাচনের জন্য কতটুকু প্রস্তুত জানতে চাইলে সিইসি বলেন, সেটা করা যাবে। নির্বাচনের জন্যতো ৯০ দিন সময় থাকে। এটাতো সরকারের ওপর নির্ভর করে আগাম নির্বাচনের বিষয়টা। তারা যদি আগাম নির্বাচনের জন্য বলে, তখন আমরা পারবো। ৯০ দিনের সময় আছে, আমাদের ব্যালট বক্স যা কিছু আছে দরকার। শুধু পেপার ওয়ার্কগুলো লাগবে।

সুষ্ঠু নির্বাচনের বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের বিষয়ে আমাদের কোনো আপোষ নেই।

প্রবাসীদের ভোটাধিকারের বিষয়ে সিইসি বলেন, ‘পোস্টাল ব্যালটে খুব একটা সাড়া পাওয়া যায় না। তাই আমি বলেছি  যে, তিনশ আসনের নির্বাচনের জন্য আমাদের লোকজনের বিদেশে বাক্স নিয়ে যাওয়া সম্ভব না। তবে নিয়মটি এখনো বলবৎ  আছে। যদি ইভিএম চালু হয়, তখন হয়তো এটা করা হবে।’

তিনি বলেন,‘এই জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে কি না আমাদের কাছে জানতে চেয়েছিল আমি বলেছি যে, এটা সম্ভব না। আমরা প্রস্তুত না। কিছু রাজনৈতিক দল এটির বিরোধীতা করেছে,  সে জন্য আমরা এ নিয়ে  কোনো বিতর্কে যাবো না।’

সিইসি বলেন, ‘ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিদের বলেছি, তোমরা আমাদের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি  গোষ্ঠী। ইউরোপীয় ইউনিয়নে আমাদের প্রায় ৮৫ ভাগ বাণিজ্য হয়।  প্রায় ৮০  থেকে ৯০ ভাগ গার্মেন্টস প্রডাক্টস ইউরোপীয় ইউনিয়নে যায়। নির্বাচনের ব্যাপারে তাদের কাছে যখন  যে সাহায্য সহযোগগিতার প্রয়োজন হবে তারা তা করবেন বলে আমাদেরকে আশ্বস্ত করেছেন।’

পর্যবেক্ষক নিয়ে তিনি বলেন, জাতীয় নির্বাচনের আগে আমরা বিদেশি পর্যবেক্ষকদের আমন্ত্রণ জানাবো। ইইউ প্রতিনিধিরা নির্বাচনের যে পরিবেশ রয়েছে তা নিয়ে সন্তুষ্ট। একটা ভালো নির্বাচনের জন্য আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ, এ কথা তাদের জানিয়েছি।

বৈঠক শেষে ঢাকায় ইইউ নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত রেনসিয়ে টিয়েরিংক বলেন, বর্তমান রাজনৈতিক পরিবেশ নিয়ে আমরা সন্তুষ্ট। আশা করি একটা ভালো নির্বাচনের জন্য কমিশন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তিনি বলেন, সুষ্ঠ এবং সবার অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন আমরা চাই। আজকের বৈঠকে অন্য বিষয়গুলোর সঙ্গে আমরা এটি জানিয়েছি। এসময় অন্য নির্বাচন কমিশনাররাও উপস্থিত ছিলেন।