একই পরিবারের ১৪ জন হাসপাতালে

0
172

একই পরিবারের ১৪ জনসহ ১৮ জন হাসপাতালে হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার লামাতাশী ইউনিয়নের বড়িকান্দি গ্রামে পটকা মাছ খেয়ে একই পরিবারের ১৪ জনসহ ১৮ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

রোববার রাত ৯টার দিকে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে প্রথমে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে পরে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। অসুস্থরা হলেন- আরফান উল্লাহ (৬৫), সিতারা খাতুন (৫৫), আব্দুল জলিল (৩০), তাছলিমা খাতুন (২০), মাহমুদা আক্তার (১৬), চাঁন বানু (২৫), নাছিম (৫), তানিসা আক্তার (৭), সুহেনা আক্তার (৩০), তামিম (৮), আবদুল মতিন (৪৫), আবদুল মতলিব (৩৮), আবদুল মোতালিব (৩৫), তানভির (২), তামান্না (১৪), শাহাবুদ্দিন (২৬), শাহীন (১৮) ও এমরান (২৬)। এদের মধ্যে আরফান উল্লাহ, আবদুল জলিল, সিতারা খাতুন ও সুহেনা আক্তারের অবস্থা গুরুতর। স্থানীয় ইউপি সদস্য নৃপেশ চন্দ্র দেব জানান, বাহুবল উপজেলার মিরপুর বাজারের ফার্নিচার ব্যবসায়ী আবদুল জলিল শনিবার রাতে মিরপুর ভিতর বাজার থেকে কিছু পটকা মাছ কিনে নেন। পরদিন রোববার দুপুরে দোকান কর্মচারী ও বাড়ির কাজের লোকসহ পরিবারের সবাই খাবারের সময় পটকা মাছের ভাজি খান। পরে ওইদিন সন্ধ্যার দিকে একে একে সবাই অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ দিকে মাছের ফেলে দেয়া উচ্ছিষ্ট অংশ খেয়ে তাদের ঘরে থাকা একটি পোষা বিড়াল ও চারটি মোরগ মরে গেছে। এতে পরিবারের সদস্যদের মধ্যে আতংক দেখা দেয়। পরে রাতেই আক্রান্ত সবাই উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি হন। হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শামীমা আক্তার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ধারণা করা হচ্ছে পটকা মাছ খাওয়ায় বিষাক্রান্ত হয়ে তারা অসুস্থ হয়ে পড়েন। বাহুবল মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, অসুস্থ সবাই সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।