কাশিপুরে কালভার্ট নির্মাণে ঠিকাদার কবিরের দুর্নীতি

0
301

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কাশিপুরে কাল ভার্ট নির্মানে অনিয়মের অভিযোগ এনে নির্মান কাজ বন্ধ করে দেন স্থানীয়রা। এসময় স্থানীয়রা বরিশাল সদর উপজেলার নিবার্হী অফিসার মোঃ মোশারফ হোসেনকে মুঠোফোনে জানালে তৎক্ষনিক সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তা পাঠিয়ে ব্যবস্থা নেন।

অভিযোগ উঠে বরিশাল সদর উপজেলার ২ নং কাশিপুর ইউনিয়ন বিল্ববাড়ী গ্রামের আর.আর.এফ পুলিশ লাইন্সের সম্মূখে সিমেন্ট’র পুল এলাকায় প্রায় ৩০ লাখ টাকা ব্যয় করে লাকুটিয়া খালে কালভার্ট নির্মানের কাজ শুরু করেন বরিশাল সদর উপজেলা। কালভার্ট নির্মান কাজ শুরুর প্রথম থেকেই অনিয়মের অভিযোগ উঠে ঠিকাদার কবিরের বিরুদ্ধে।

সরকারী অর্থয়ানে কনস্টেশন কাজে লাল বালু ব্যবহার বাদ্ধতামূলক হলেও ঠিকাদার কবির, নিুমানের ইট, বালু, পাথর এবং পরিমানের চেয়ে কম রড ব্যবহার করে আসছেন। সঠিক ভাবে কাজ করার জন্য স্থানীয়রা একাদিক ভার ঠিকাদার কবিরের কাছে অনুরোধ জানালেও কোন কর্ণপাত না করে নিজের খামখেয়ালীমত কাজ চালিয়ে আসছিল কালভার্ট নির্মান কাজ। গতকাল স্থানীয়রা পূর্নরায় অনুরোধ করেন ঠিকাদার কবিরকে। কবির কারো কথা না শুনে নিজের ইচ্ছামত কাজ চালিয়ে যাচ্ছিল। একপর্যায় কাজ বন্ধ করে দেন স্থানীয়রা। বিষয়টি বরিশাল সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোঃ মোশারফ হোসেনকে জানান স্থানীয়রা।

উপজেলার নির্বাহী অফিসার, তাৎক্ষনিক উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান ও উপ সহকারী প্রকৌশলী জাহিদুল ঘটনাস্থল পরির্দশন করে ব্যবস্থা নেয়া নির্দেশ প্রদান করেন। অনিয়মের বিষয় জানতে চাইলে, ঠিকাদার কবির বলেন, সংবাদ প্রকাশ করলে কাজ বন্ধ হবে না। সবাইকে কমিশন দিয়ে কাজ করি। অনিয়মত একটু হবেই! তাতে কি হবে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থল পরির্দশন করে অনিয়মের সততা পাওয়া গেছে। এসময় ঠিকাদারকে সঠিক ভাবে কাজ করার নির্দেশ দেন, পাশাপাশী কাজে কোন অনিয়ম হলে সাথে সাথে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামানকে মুঠোফোনে অভিযোগ দেয়ার জন্য স্থানীয়দের অনুরোধ করে আসেন।

বরিশাল সদর উপজেলা নিবার্হী অফিসার মোঃ মোশারফ হোসেন বলেন, স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান ও উপ সহকারী প্রকৌশল জাহিদুলকে ঘটনা স্থলে পাঠানো হয়েছে। তারা ইতি পূর্বে বিষয়টি সমাধান করে আসছেন। তিনি আরো বলেন, কালভার্ট নির্মানে যে যে মালামাল সিডিউলে উল্লেখ করা আছে। সেই ভাবেই কাজ করতে হবে। কাজে কোন দূর্নীতি হলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। দূর্নীতিবাজদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দেয়া হবে।