সপ্তাহ শেষে সূচক, লেনদেন ও বাজার মূলধন কমেছে

0
365

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সপ্তাহজুড়ে লেনদেন হওয়া পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে তিন কার্যদিবস মূল্য সূচক বেড়েছে। বাকি দুই কার্যদিবস সূচক তুলনামুলক বেশি কমেছে। এরই ধারাবাহিকতায় সপ্তাহ শেষে ডিএসইর তিনটি মূল্য সূচক, টাকার অংকে লেনদেন ও বাজার মূলধন কমেছে।

সপ্তাহ শেষে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স কমেছে ০.৮৩ শতাংশ বা ৪০ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহ শেষে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স কমেছিল ১.৫৪ শতাংশ বা ৭৩ পয়েন্ট।

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস অর্থাৎ রবিবার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স কমেছে ৬৯ পয়েন্ট, সোমবার কমেছে ৩৬ পয়েন্ট, মঙ্গলবার বেড়েছে ৩৮ পয়েন্ট, বুধবার বেড়েছে ১১ পয়েন্ট এবং বৃহস্পতিবার বেড়েছে ১৬ পয়েন্ট।

রবিবার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স অবস্থান করে ৪৬৫৪ পয়েন্টে, সোমবার ৪৬১৮ পয়েন্টে, মঙ্গলবার ৪৬৫৬ পয়েন্টে, বুধবার ৪৬৬৮ পয়েন্টে এবং বৃহস্পতিবার অবস্থান করে ৪৬৮৫ পয়েন্টে।

শরিয়াহ সূচক সপ্তাহ শেষে ০.৪৯ শতাংশ বা ৫ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১১১০ পয়েন্টে।

আর ডিএসই-৩০ ইনডেক্স সপ্তাহ শেষে ০.৮৩ শতাংশ বা ১৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৭৩৩ পয়েন্টে।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে টাকার অংকে লেনদেন কমেছে ১.২৭ শতাংশ বা ১৩ কোটি ৮১ লাখ ৪ হাজার ৭১৩ টাকা। আগের সপ্তাহে ডিএসইতে টাকার অংকে লেনদেন কমেছিল ১৫.৭৯ শতাংশ বা ২০৩ কোটি ৫৩ লাখ ৩০ হাজার ৮৫৫ টাকা।

সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৭১ কোটি ৪১ লাখ ৮ হাজার ৬০৩ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৮৫ কোটি ২২ লাখ ৫৩ হাজার ৩১৬ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

গত সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবস ডিএসইতে দৈনিক গড় শেয়ার লেনদেন কমেছে ১.২৭ শতাংশ বা ২ কোটি ৭৬ লাখ ২০ হাজার ৯৪২ টাকা। আগের সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবস ডিএসইতে দৈনিক গড় শেয়ার লেনদেন কমেছিল ১৫.৭৯ শতাংশ বা ৪০ কোটি ৭০ লাখ ৬৬ হাজার ১৭১ টাকা।

গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৮ কোটি ২০ লাখ ৭১ হাজার ১১২টি। আগের সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট শেয়ার লেনদেন হয়েছিল ৩০ কোটি ৩৪ লাখ ২০ হাজার ১৮২টি। অর্থাৎ শেয়ারের হিসাবে লেনদেন কমেছে ৭.০৪ শতাংশ বা ২ কোটি ১৩ লাখ ৪৯ হাজার ৭০টি।

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রবিবার লেনদেন হয়েছিল ১৮৪ কোটি ৬৮ লাখ ৫৩ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট, সোমবার ২২৬ কোটি ৯৪ লাখ ৫৯ হাজার টাকা, মঙ্গলবার ১৯৪ কোটি ৫২ লাখ ২৪ হাজার টাকা, বুধবার ২০৩ কোটি ৭৯ লাখ ৭২ হাজার এবং বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছিল ২৬১ কোটি ৪৬ লাখ ৪০ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

সপ্তাহজুড়ে লেনদেন হওয়া ৩২০টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৯৪টির, কমেছে ২০৪টির, দর অপরিবর্তিত রয়েছে ২১টির এবং লেনদেন হয়নি ১টি কোম্পানির শেয়ার।

গত সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে ৪৮ কোটি ১১ লাখ ১৭ হাজার ৩৪৫ টাকা বা ০.০২ শতাংশ। আগের সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছিল ৪ হাজার ৩৪৪ কোটি ৪৭ লাখ ৭৭ হাজার ১৬৭ টাকা বা ১.৩৫ শতাংশ।

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ১৭ হাজার ৭৬৯ কোটি ৭৭ লাখ ৯৫ হাজার ৬৬৭টাকা এবং শেষ কার্যদিবসে বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ১৭ হাজার ৭২১ কোটি ৬৬ লাখ ৭৮ হাজার ৩২২ টাকা।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে ‘এ’ ক্যাটাগরির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৭৮.৬৮ শতাংশ, ‘বি’ ক্যাটাগরির ৩.৭৭ শতাংশ, ‘এন’ ক্যাটাগরির ১২.৮৩ শতাংশ এবং ‘জেড’ ক্যাটাগরির ৪.৭১ শতাংশ। আগের সপ্তাহে ডিএসইতে ‘এ’ ক্যাটাগরির শেয়ার লেনদেন হয়েছিল ৭৬.০১ শতাংশ, ‘বি’ ক্যাটাগরির ৫.১২ শতাংশ, ‘এন’ ক্যাটাগরির ১৪.৪৫ শতাংশ এবং ‘জেড’ ক্যাটাগরির ৪.৪২ শতাংশ।

সপ্তাহ শেষে অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্যসূচক কমেছে ০.৩২ শতাংশ বা ২৯ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহ শেষে সিএসইর সাধারণ মূল্যসূচক কমেছিল ২.১১ শতাংশ বা ১৮৮ পয়েন্ট।

সপ্তাহ শেষে সিএসইর সিএসসিএক্স মূল্যসূচক অবস্থান করছে ৮৭০৭ পয়েন্টে। আগের সপ্তাহ শেষে অবস্থান করে ৮৭৩৬ পয়েন্টে।

সপ্তাহজুড়ে সিএসইতে লেনদেন হওয়া ২৭১টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭৫টির, কমেছে ১৭১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৫টি কোম্পানির শেয়ার দর।